SHARE
জেনারেল মিন অং লাইং-এর অফিসিয়াল ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আবারও নির্ভেজাল মিথ্যাচার করলেন মিয়ানমার সেনাবাহিনীর কমান্ডার ইন চিফ সিনিয়র জেনারেল মিন অং লাইং। তার মতে, রোহিঙ্গা মুসলিমরা মিয়ানমারের জনগোষ্ঠী নয়। আর দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সংখ্যা গণমাধ্যম অতিরঞ্জিত করে প্রকাশ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ অক্টোবর) মিয়ানমার সেনাপ্রধানের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম  ফেসবুক পেজে তার এ বক্তব্য উঠে আসে। এমনকি মিন অং হ্লাইয়াং রোহিঙ্গাদের ‘বাঙালি’ বলে মন্তব্য করেছেন।

বলেন, তারা মিয়ানমারের জন্য ক্ষতিকর। আর সাবেক ব্রিটিশ ঔপনিবেশিই এ জন্য দায়ী। অবৈধ অভিবাসী প্রমাণ করার জন্য এবং তাদের নাগরিক অধিকার বঞ্চিত করার জন্য মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও সেখানকার সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠী রোহিঙ্গাদের কৌশলগত কারণে দীর্ঘদিন ধরে ‘বাঙালি’ আখ্যা দিয়ে আসছে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠকে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান বলেন, ‘তারা কোনোভাবেই মিয়ানমারের জনগোষ্ঠী নয়। নথিপত্র প্রমাণ করে, তারা কখনো রোহিঙ্গা নামেও পরিচিত ছিল না। ঔপনিবেশিক আমল থেকেই তারা বাঙালি ছিল। মিয়ানমার তাদের এ দেশে নিয়ে আসেনি। ঔপনিবেশিক আমলেই তারা এসেছিল।

রোহিঙ্গারা ব্রিটিশ শাসনের অনেক আগে থেকেই রাখাইনের (তৎকালীন আরাকান) বাসিন্দা হলেও মিয়ানমার সেনাপ্রধানের দাবি, রোহিঙ্গারা বাংলাদেশের আদি-বাসিন্দা হলেও ব্রিটিশ শাসকেরা তাদের রাখাইনে ঢুকিয়ে দিয়েছে। মিয়ানমারে তাদের বংশ পরম্পরার কোনো আইনি ভিত্তি নেই।

প্রসঙ্গত মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী নিরস্ত্র রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ-শিশুদের ওপর নির্যাতন ও হত্যাযজ্ঞ চালাতে থাকে। এই পরিস্থিতিতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশ আসছে। জাতিসংঘের তথ্যমতে, গত কয়েক সপ্তাহে পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে।