করোনার থাবায় যখন প্রতিদিন বিশ্বের বহু মানুষের প্রাণহানি হচ্ছে, তখনই প্রথম করোনার ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে রুশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

ভ্যাকসিন আবিষ্কারের বিষয়ে মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দাবি করেন, মস্কোর গামালিয়া ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনার এই ভ্যাকসিন রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সবুজ সংকেত পেয়েছে। বিশ্ববাসীর জন্য করোনার ভ্যাকসিন খুবই প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক সরকারি সভায় রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, মস্কোর গামালেয়া ইনস্টিটিউটে উদ্ভাবিত ওই ভ্যাকসিন নিরাপদ এবং তার নিজের এক কন্যার শরীরে সেটি প্রয়োগ করা হয়েছে।

হাজারও মানুষের দেহে, সার্বিকভাবে ‘ফেজ থ্রি ট্রায়াল’ নামে পরিচিত এক বৃহত্তর পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনায় নিয়ে রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ওই ভ্যাকসিনের আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দিয়েছে।

এ ধরনের পরীক্ষার ক্ষেত্রে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা পরখ করতে একটি নির্দিষ্টসংখ্যক অংশগ্রহণকারীর প্রয়োজন পড়ে। আর তারপরই মেলে সেটির গণ-ব্যবহারের অনুমোদন।

বিশ্বজুড়ে বিশেষজ্ঞরা বারবার সাবধান করে দিচ্ছেন, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন দ্রুত বাজারে ছাড়ার লড়াইয়ে নেমে নিরপত্তার সঙ্গে কোনো রকম আপস করা চলবে না। তবে সাম্প্রতিক জরিপগুলোতে দেখা গেছে, এ ধরনের ভ্যাকসিন তৈরিতে সরকারগুলোর এমন যটপট কর্মপ্রচেষ্টার প্রতি জনগণের অনাস্থা বাড়ছে।