CORONAVIRUS

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে সন্দেহে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে তিন দিনে মোট ৩৪ জনকে ‘হোম কোয়ারেন্টাইনে’ রাখা হয়েছে। ‘হোম কোয়ারেন্টাইনে’ রাখা ৩২ জন পুরুষ। তাঁরা সবাই বিদেশফেরত। বাকি দুজন নারী।

পৌর ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য সহকারীরা হোম কোয়ারেন্টাইনের প্রধান পর্যবেক্ষক হিসেবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির পক্ষ থেকে সার্বক্ষণিক তাঁদের স্বাস্থ্যের খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

দেশের ছয়টি আইসোলেশন ইউনিটের মধ্যে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক সংলগ্ন ভৈরবে নির্মাণাধীন ট্রমা সেন্টারকে আইসোলেশন সেন্টার হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। সেই লক্ষ্যে ৫০ শয্যার এই আইসোলেশন ইউনিটকে রোগী রাখার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। করোনাভাইরাসে ঝুঁকি আছে এমন লোকজনকে এই সেন্টারে স্থানান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রতিরোধ কমিটি।

ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, ৯ মার্চ ভৈরবে প্রথমে ১১ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। গতকাল রাখা হয় ১৩ জনকে। আর বুধবার রাখা হয়েছে ১০ জনকে। প্রত্যেকের বাড়ির পৃথক কক্ষে তাদের রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তারা ১৪ দিন পর্যবেক্ষণে থাকবেন।