‘আরশোলার দুধ’ গরুর দুধের চেয়েও তিন গুণ বেশি পুষ্টিকর

0
341

ঘরের আনাচে কানাচে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় আরশোলাকে৷ কিন্তু জানেন কি, একটি বিশেষ প্রজাতির আরশোলার দুধের পুষ্টিগুণ অনেক বেশি৷ গরু বা মোষের দুধের চেয়ে যার পুষ্টিগুণ তিনগুন বেশি। সারবে অনেক রোগও৷ একটি গবেষণাপত্রে এমনটাই দাবি করা হয়েছে৷

এই গবেষণাপত্রের খোঁজ নেটিজেনরা পাওয়ার পর থেকেই এমন বিচিত্র আবিষ্কার নিয়ে আলোড়ন পড়ে গিয়েছে৷ যতই পুষ্টিকর হোক, তাই বলে আরশোলার দুধ৷ শুনলেই যেন ঘিনঘিন করে উঠে শরীর৷ কিন্তু যতই আপনার খারাপ লাগুক, এর পুষ্টিগুন ব্যাখ্যা করেছেন গবেষকরা। তাদের দাবি, আরশোলার দুধে রয়েছে সুস্বাদু মিল্ক ক্রিস্টাল। কেবল সুস্বাদুই নয়, তার গুণাগুণও অনেক বেশি। গরু বা মোষের দুধের চেয়ে ৩-৪ গুণ বেশি।

এই বিশেষ প্রজাতির আরশোলার নাম প্যাসিফিক বিটল ককরোচ। এই আরশোলার শরীরে উৎপন্ন হয় দুধ৷

গবেষক দলের মতে, আরশোলার দুধে প্রাপ্ত ক্রিস্টালে প্রোটিন, ফ্যাট, সুগার তো আছেই।এছাড়া রয়েছে অপরিহার্য অ্যামিনো অ্যাসিডও।

তবে এই আরশোলা কিন্তু বাড়ির কোণে ঘুরে বেড়ানো আরশোলা নয়। এটি একটি বিশেষ প্রজাতির আরশোলা। অন্য আরশোলার মতো এরা ডিম পেড়ে বংশবিস্তার করে না। এরা স্তন্যপায়ী প্রাণীদের মতো বাচ্চা প্রসব করে।

এই ধরণের পোকা অস্ট্রেলিয়াতে পাওয়া যায়৷ গবেষকরা বলছেন আরশোলার শরীরে উৎপাদন হয় বিরল দুধের স্ফটিক৷ সেই থেকেই তৈরি হয় এই ঘন দুধ৷