দেশের করোনাভাইরাস আগামী এক-দুই বা তিন মাসে যাবে না। এটি দুই থেকে তিন বছর বা তারচেয়েও বেশি স্থায়ী হবে। যদিও সংক্রমণের মাত্রা উচ্চহারে নাও থাকতে পারে। আর সেজন্য সরকারের নেওয়া পরিকল্পনা সম্পর্কে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। করোনামুক্ত হয়ে আজ বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) কোভিড-১৯ নিয়ে আয়োজিত নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে অংশ নিয়ে তিনি এ পরিকল্পনার কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘বেশ কিছুদিন পর ‍যুক্ত হলাম এই বুলেটিনের উপস্থপনায়। আমিও কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছিলাম এবং আমাকে বেশ কয়েকদিন হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে হয়েছিল। এখন সুস্থ হয়ে আজ কয়েকদিন হলো অফিসে যোগদান করেছি এবং কাজ করছি।’বক্তব্যের শুরুতে তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ এবং গুণীজনের মৃত্যুকে জাতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি বলে মন্তব্য করেন।’

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনে প্রাদুর্ভাবের পর গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম কোভিড-১৯ রোগী ধরা পড়ে। এর একশ দুই দিনের মাথায় বৃহস্পতিবার শনাক্ত রোগীর সংখ্যা লক্ষ ছাড়ায়।

ডা. আজাদ নিজেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। সেরে ওঠার পর বৃহস্পতিবারই প্রথম বুলেটিন প্রকাশের সময় ফেসবুকে আসেন তিনি।