biman

বিদেশ সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আনতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পাইলট ফজল মাহমুদ চৌধুরী পাসপোর্ট ছাড়াই কাতারে যান।

পাসপোর্ট ছাড়া কাতারে গেলেও দোহার হামাদ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ চৌধুরীকে আটক বা জিজ্ঞাসাবাদ করেনি।

কাতারে অবতরণের পর পাসপোর্ট না পেয়ে বিমান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি। এরপর হামাদ ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের ভেতরে হোটেলে ছিলেন।

বাংলাদেশ থেকে পাসপোর্ট যাওয়ার পর ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেন ফজল মাহমুদ। এখন তিনি কাতারেই অবস্থান করেছেন। খুব শিগগিরই দেশে ফিরবেন বলে জানান ফজল মাহমুদ।

পাসপোর্ট ছাড়া পাইলট কীভাবে কাতার গেলেন তা তদন্তে কমিটি গঠন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ।

শুক্রবার (৭ জুন) সুরক্ষা সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গঠিত কমিটিকে তদন্ত করে সাত দিনের মধ্যে সুরক্ষা বিভাগে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। কমিটিতে এক বা একাধিক সদস্য যুক্ত হতে পারবেন।