‘কেউ আমারে একটু সাহায্যও করে নাই’

0
57

বরগুনার রিফাতকে হত্যা করার সময় অন্যদের সাহায্য চেয়েও পাননি স্ত্রী আয়েশা আকতার মিন্নি। খুনিদের দুই হাতে জাপটে ধরেছেন। ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছেন। তারপরও বাঁচাতে পারেননি স্বামীকে।

বৃহস্পতিবার রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে এসব কথা বলেছেন নিহতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা। সকালে বরগুনা পুলিশ লাইনের কাছে বাবার বাড়িতে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

মিন্নি জানিয়েছেন, তখনকার সে নৃশংস ঘটনা। তিনি জানান, আমার স্বামী আমাকে কলেজ থেকে নিয়ে ফেরার সময় নয়ন বন্ড ও রিশান ফরাজী সহ কয়েকজন হামলা চালায়। আমি অস্ত্রের মুখে পড়েও বাঁচানোর চেষ্টা করেছি, কিন্তু বাঁচাতে পারি নাই। আমার আশেপাশে অনেক মানুষ ছিল। আমি চিৎকার করছি, সবাইকে বলছি – ওরে একটু বাঁচান। কিন্তু কেউ এসে আমারে একটু সাহায্যও করে নাই।

প্রসঙ্গত, গতকাল বুধবার সকালে, স্ত্রী মিন্নিকে বরগুনা সরকারি কলেজে পৌছে দিতে গিয়েছিলেন রিফাত শরীফ। কলেজের গেট পার হতে না হতেই ১০ থেকে ১২ জনের একদল যুবক তাকে পথরোধ করে মারতে মারতে টেনে রাস্তায় নিয়ে আসে। এরপরই নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরায়েজী ধারালো দা দিয়ে রিফাত শরীফকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। এ সময়, রিফাতে স্ত্রী মিন্নি রিফাতকে বারবার সন্ত্রাসীদের হাত থেকে বাঁচানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।। কিন্ত, ততক্ষণে উপুর্যপরি কোপে মারাত্মকভাবে আহত হয় রিফাত।

পরে, গুরুতর আহত অবস্থায় রিফাতকে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু, তার রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় সেখান থেকে তাকে বরিশাল শের ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই রিফাত বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।