দুঃসময় যেন পিছু ছাড়ছে না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। নিজে কোনো ধরণের ফিক্সিংয়ে জড়াননি। তবে জুয়াড়ির দেয়া ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করায় মাত্র কয়েকদিন আগে দুই বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞায় পড়লেন। এর মধ্যে এক বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা। এ ঘটনা নিয়ে কেবল বাংলাদেশে নয়, সারাবিশ্বেই তোলপাড় আর আলোড়ন তো আর কম হলো না।

সেই রেশ কাটতে না কাটতেই সাকিব আল হাসান পেলেন আরেক দুঃসংবাদ। তবে এবারের দুঃসংবাদ ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়ে নয়। সম্প্রতি সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগরে সাকিব আল হাসান বিপুল টাকা বিনিয়োগ করে গড়ে তুলেছিলেন কাঁকড়া আর চিংড়ির খামার। তবে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল সাকিবের সাধের সেই খামার একেবারে লণ্ডভণ্ড করে দিয়ে গেছে।

সাতক্ষীরায় ৩৫ বিঘা জমির ওপর চার বছর আগে কাঁকড়ার খামার গড়ে তোলেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। নাম দিয়েছেন ‘সাকিব অ্যাগ্রো ফার্ম লিমিটেড’। এখান থেকে উৎপাদিত কাঁকড়া প্রক্রিয়াজাত করে পাঠানো হয় বিদেশে।

নদী থেকে ৮০-১২০ গ্রাম ওজনের কাঁকড়া সংগ্রহ করা হয়। সেগুলো প্রজেক্টের ফার্মে বক্সে রাখার পর নতুন করে খোলস বদলায়। খোলস বদলানোর পর সফট কাঁকড়া সংগ্রহ করে প্রসেসিং করে প্যাকেটজাত করা হয়। এগুলো বিদেশে অনেক দামে বিক্রি হয়

শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের দাতিনাখালী এলাকায় রবিবার ভোরে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল তছনছ করে দেয় সাকিবের কাঁকড়ার খামার। খামারের বেড়িবাঁধ ঠিক থাকলেও উল্টে গেছে টিন ও বাঁশের বেড়া। তাছাড়া বর্তমানে কাঁকড়ার প্রজেক্টের বন্ধ মৌসুম থাকায় খুববেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

জানা যায়, আইলা দুর্গত মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের দাতিনাখালীতে গড়ে তোলা হয় এই খামার।