coronavirus

নিজেদের দোষ ঢাকতে এবার বাংলাদেশ ও ভারতের দিকে আঙ্গুল তুলেছে চীন। সম্প্রতি এক গবেষণার বরাত দিয়ে চীন দাবি করছে, করোনার উৎস চীন নয়, বরং ভারত বা বাংলাদেশ। কোন দেশ থেকে করোনার উৎপত্তি হয়েছে তা নিশ্চিতভাবে না জানালেও দেশটির সায়েন্স অ্যাকাডেমি প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে এমনটি দাবি করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রভাবশালী চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানচেটে গবেষণাটি প্রকাশ করেছে এই চীনের গবেষকেরা। অবশ্য এই গবেষণা পত্রটি ত্রুটিপূর্ণ বলে মত দিয়েছেন অধিকাংশ বিশেজ্ঞরা। তাদের মতে ইচ্ছাকৃতভাবে এখানে বেশ কিছু বিষয় এড়িয়ে একটি বিতর্কিত বিষয়কে সামনে নিয়ে আসা হয়েছে।

গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের মে থেকে জুন মাসে রেকর্ড দ্বিতীয় দীর্ঘতম দাবদাহ তাণ্ডব চালিয়েছিল উত্তর-মধ্য ভারত এবং পাকিস্তানে। ফলে ওই অঞ্চলে ভয়াবহ পানির সংকট সৃষ্টি হয়। পানির অভাবে বানরের মতো বন্যপ্রাণী একে অপরের সঙ্গে ভয়াবহ লড়াইয়ে লিপ্ত হয়েছিল এবং অবশ্যই এটি মানুষ-বন্যপ্রাণী সংস্পর্শের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলেছিল।

গবেষণায় বিজ্ঞানীরা বলেন, পানির অভাবে বানরের মতো বন্যপ্রাণীরা একে অপরের সঙ্গে ভয়াবহ লড়াইয়ে লিপ্ত হয়েছিল এবং অবশ্যই এটি মানুষ-বন্যপ্রাণী সংস্পর্শের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলেছিল। চীনা গবেষক দলটি করোনাভাইরাসের উৎস খুঁজতে ফাইলোজেনেটিক বিশ্লেষণ পদ্ধতি ব্যবহার করেন। তাদের মতে, সবচেয়ে কম রূপান্তরিত রূপটাই ভাইরাসের আসল রূপ হতে পারে।

এ ধারণার ভিত্তিতেই চীনা গবেষকরা দাবি করেছেন, করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ উহানে হয়নি। ভারত কিংবা বাংলাদেশের মতো জায়গাগুলো, যেখানে কম রূপান্তরিত ভাইরাসের নমুনা পাওয়া গেছে, সেখানেই হতে পারে এর আসল উৎস।