গাম্বিয়া, আবুবকর তামবাদু উভয়েই ইতিহাসে পাতায় ঢুকে গেলেন। রাখাইনে মিয়ানমারের গণহত্যার বিরুদ্ধে অপ্রত্যাশিত পদক্ষেপ হচ্ছে গাম্বিয়ার আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা। গাম্বিয়া মিয়ানমারকে গণহত্যার দায়ে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের মুখে দাঁড় করিয়েছে। তাই শান্তিতে নোবেল জয়ী অং সান সু চিকে গণতন্ত্র, মানবাধিকারের শিক্ষা দিচ্ছে গাম্বিয়া।

অং সান সু চি যথারীতি সব জলাঞ্জলি দিয়ে গণহত্যার পক্ষে সাফাই গেয়ে যাচ্ছেন। আর এদিকে আবুবকর লজ্জায় ফেলে দিলেন মানবতার স্বঘোষিত অভিভাবক, আত্মীয়, মালিক ও সেবায়েতদের।

সবাই যখন নিন্দা জানিয়ে বিষয়টি পার করে দিচ্ছিল, ঠিক তখনই মিয়ানমারকে গণহত্যার বিচারের মুখে দাঁড় করিয়েছে। অনেক দেশই মিয়ানমারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে গণহত্যা বা মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা করতে পারত।

গাম্বিয়ার বিচারবিষয়ক মন্ত্রী আবুবকর তামবাদু প্রমাণ করে দিলেন, একজন ব্যক্তিই ইতিহাসে ব্যবধান গড়ে দিতে পারেন। আবুবকর বলেছেন, সুচি মিয়ানমারের অপরাধ অস্বীকারের পুনরাবৃত্তি ঘটালে তা হবে চরম হতাশাজনক।

গাম্বিয়ার পক্ষে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করা অ্যাটর্নি জেনারেল তামবাদু আন্তর্জাতিক গণহত্যা প্রশ্নে বিশ্বজুড়েই নন্দিত আইনজীবী। এর আগে তিনি রুয়ান্ডায় গণহত্যার বিচারে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউটরের বিশেষ সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন।