যে পাঁচ আলোচিত প্রশ্নের উত্তর দেননি মেসি

0
30

বার্সেলোনায় ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত থাকার ঘোষণা দেয়ার সময় নানা বিষয়ে আলোচনা করেছেন লিওনেল মেসি। তবুও কিছু আলোচিত বিষয় এড়িয়ে গেছেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা। গোলডটকমের সঙ্গে আলাপচারিতায় পাঁচ আলোচিত প্রশ্নের বিষয়ে কথা বলেননি মেসি।

পেপ গার্দিওলাকে ফোন করার বিষয়ে
বার্সেলোনায় ২০০৮ থেকে ২০১২ পর্যন্ত বার্সেলোনার প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করা পেপ গার্দিওলাকে নাকি ফোন করেছিলেন মেসি। ম্যানচেস্টার সিটির দায়িত্ব থাকা এই স্প্যানিশ কোচকে মেসি সিটিজেনদের ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানার জন্য ফোন করেছিলেন বলে দাবি ইংলিশ ও স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম। এই বিষয়ে মুখ খোলেননি মেসি।

ম্যানচেস্টার সিটির ৭০ কোটি ইউরোর প্রস্তাব
মেসি বার্সেলোনা ছাড়ার ঘোষণা দেয়ার পর থেকে আলোচনার তুঙ্গে উঠে ‘তিনি কোন ক্লাবে যেতে পারেন’ এই বিষয়টি। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানায়, মেসিকে দলে ভেড়ানোর দৌড়ে এগিয়ে ম্যানচেস্টার সিটি। পাঁচবছরের জন্য ৭০ কোটি ইউরোর প্রস্তাব নাকি মেসিকে দিয়েছিল সিটিজেনরা। তাদের প্রস্তাবে সম্মতি দিয়েছেন মেসি- এমন খবরও প্রকাশিত হয়।

ম্যানসিটির প্রস্তাব নিয়ে কোন কথা বলনেনি মেসি।

রোনাল্ড কোম্যানের সঙ্গে আলোচনার বিষয়
বার্সেলোনার নতুন কোচ হিসেবে যোগ দেয়ার পরই রোনাল্ড কোম্যান বৈঠকে বসেন লিওনেল মেসির সঙ্গে। সেখানে কোম্যান মেসিকে জানিয়ে দেন, ‘বার্সেলোনায় তুমি আগে যেসব সুবিধা পেতে, এখন সেসব পাবে না। তোমাকে দলের জন্য সবকিছুই করতে হবে। আমি এ বিষয়ে কোন ছাড় দেব না। সবসময় তোমাকে ক্লাব নিয়েই ভাবতে হবে।’ স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, কোম্যানের এমন মন্তব্য ভালোভাবে নেননি মেসি। সেখানেই নিজের অসন্তোষ প্রকাশ করেন। গোলডটকমকে দেয়া সাক্ষাতকারে এই বিষয়ে কথা বলেননি মেসি। নতুন কোচ নিয়ে অবশ্য নিজের একটা ভাবনা জানিয়েছেন, ‘নতুন একজন কোচ এসেছেন এবং স্বাভাবিকভাবেই তার নতুন ভাবনা থাকবে। এটা ভালো, কিন্তু আমাদের দেখতে হবে দল কীভাবে সাড়া দেয় এবং এটা আমাদেরকে শীর্ষ পর্যায়ে লড়াই করার মতো যথেষ্ট কি না সেই বিষয়টি।’

মৌসুমের মাঝপথে কিকে সেতিয়েনের নিয়োগ
গত জানুয়ারিতে এর্নেস্তো ভালভার্দের অধীনে লা লিগার শীর্ষে ছিল বার্সেলোনা। কিন্তু ভালভার্দেকে সরিয়ে দায়িত্ব দেয়া হয় কিকে সেতিয়েনকে। তার অধীনে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে লীগ শিরোপা খোয়ায় বার্সেলোনা। ভালভার্দেকে বরখাস্ত করা এবং সেতিয়েনকে নিয়োগ দেয়ায় সায় ছিল না মেসির। এসব বিষয়ে কোন মন্তব্য করেননি তিনি।

এবং লুইস সুয়ারেজ
স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের দাবি অনুযায়ী, লিওনেল মেসির বার্সেলোনা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার অন্যতম কারণ তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু লুইস সুয়ারেজ। ৩৩ বছর বয়সী এই উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের সঙ্গে বার্সেলোনা সম্প্রতি অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছে বলে দাবি স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমের। গত ছয় বছরেরও বেশি সময় কাতালানদের জার্সিতে ১৯৮ গোল করা সুয়ারেজকে ক্লাব ছাড়তে বলেন নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান। বার্সেলোনার জন্য নিজেকে উজাড় করে দেয়া এই উরুগুইয়ান তারকাকে এভাবে সরাসরি বলায় মনোক্ষুণ্ন হন মেসি। আর্জেন্টাইন মহাতারকা ক্লাব ছাড়ার ঘোষণা দিলে নতুন ক্লাব খোঁজাও শুরু করেন সুয়ারেজ। জুভেন্টাসে খেলার জন্য মৌখিক সম্মতিও দিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু শুক্রবার লিওনেল মেসি বার্সেলোনায় ২০২০-২১ মৌসুম পর্যন্ত থাকার ঘোষণা দেয়ার পর সুয়ারেজের জুভেন্টাসে যোগ দেয়া নিয়ে সংশয় দেখা দেয়। নিজের ভবিষ্যত নিয়ে আলোচনার জন্য বৃহস্পতিবার বন্ধু লিওনেল মেসির বাড়িতেও গিয়েছিলেন সুয়ারেজ। তবে মেসি এ ব্যাপারে কোন কথা বলেননি।