Image Source: ICC/Twitter

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেছে লিগ পর্বেই। কিন্তু টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার দৌড়ে এখনও এগিয়ে আছেন সাকিব আল হাসান।

সেমিফাইনাল থেকে দুই ফেভারিট ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার বিদায় টুর্নামেন্টসেরা হওয়ার লড়াইয়ে ভালোভাবেই টিকিয়ে রেখেছে বাংলাদেশের বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারকে।

সেরার দৌড়ে সাকিবের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবা হচ্ছিল ভারতের রোহিত শর্মা এবং অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার ও মিচেল স্টার্ককে।

এক নজরে বিশ্বকাপে সেরা খেলোয়াড়ের দৌড়ে আছেন যারা:

কেন উইলিয়ামসন:

বর্তমানে রান সংগ্রহকারীদের তালিকায় পাঁচ নম্বরে আছেন কিউই দলনেতা উইলিয়ামসন। ৮ ইনিংসে ৫৪৮ রান করেছেন তিনি। বিশ্বকাপ মাতানো ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তার গড়ই সবচেয়ে বেশি, ৯১.৩৩। সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারটা হাতে তোলার ক্ষেত্রে উইলিয়ামসনকে বাড়তি সুবিধা দেবে তার নেতৃত্বগুণ। ব্যাট হাতে নিজের কাজটা করার পাশাপাশি দলকে সফলভাবে এগিয়ে নিচ্ছেন তিনি। বিশেষ করে তার বোলিং পরিবর্তনের সিদ্ধান্তগুলো বেশ বাহবা পেয়েছে।

মিচেল স্টার্ক:

সেমিফাইনালে অসিরা বাদ পড়ায় ডেভিড ওয়ার্নার (১০ ইনিংসে ৬৪৭ রান) পিছিয়ে গেলেও, তার সতীর্থ পেসার স্টার্ক ভালোভাবে টিকে আছেন দৌড়ে। ১০ ম্যাচে ১৮.৫৯ গড়ে ২৭ উইকেট নিয়েছেন তিনি। চার ও পাঁচ উইকেট নিয়েছেন দুবার করে।

সাকিব আল হাসান:

এবারের বিশ্বকাপে নিজের ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সেরা ছন্দে ছিলেন সাকিব। ৮ ম্যাচে করেছেন ৬০৬ রান, নিয়েছেন ১১ উইকেট। সেঞ্চুরি করেছেন দুটি, হাফসেঞ্চুরি পাঁচটি। এক আসরে সাতটি পঞ্চাশোর্ধ্ব ইনিংস খেলে ভারতীয় কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারের রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেছেন তিনি। একটি ইনিংসেই ফিফটি ছুঁতে পারেননি সাকিব। সে ম্যাচেও করেছিলেন ৪১ রান।

রোহিত শর্মা:

এখন পর্যন্ত চলতি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক রোহিত। ভারতীয় ওপেনার ৯ ইনিংসে ৮১ গড়ে করেছেন ৬৪৮ রান। অবিশ্বাস্য ধারাবাহিকতায় সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন পাঁচটি, হাফসেঞ্চুরি একটি। রোহিত ভেঙে দিয়েছেন গেল আসরে গড়া কুমার সাঙ্গাকারার চার সেঞ্চুরির রেকর্ড। বিশ্বকাপের এক আসরে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরির রেকর্ড জ্বলজ্বল করছে তার নামের পাশে।

জোফরা আর্চার:

ব্যাটিং শক্তি নির্ভর ইংল্যান্ডের বোলিং আক্রমণের মূল অস্ত্র জোফরা আর্চার। গতির ঝড় তোলার সঙ্গে সঙ্গে উইকেট নেওয়ার এবং ক্রমাগত ডট দেওয়ার অদ্ভুত দক্ষতার মিশ্রণ থাকায়, বিশ্বকাপে প্রথমবার খেলতে নেমেই নজর কেড়েছেন এই পেসার। ১০ ম্যাচে ২২.০৫ গড়ে আর্চারের উইকেটসংখ্যা ১৯টি। কোনো ম্যাচে চার বা পাঁচ উইকেট নিতে পারেননি ঠিকই, কিন্তু টানা কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রিত বোলিং করে গেছেন।

এই পাঁচজনের সঙ্গে সঙ্গে ১০ ইনিংসে ৬৮.৬২ গড়ে ৫৪৯ রান করা রুট, ৯ ইনিংসে ৫৪.৪২ গড়ে ৩৮১ রান করা ও ৩২.২৮ গড়ে ৭ উইকেট নেওয়া স্টোকস ও ৮ ইনিংসে ১৯.৯৪ গড়ে ১৮ উইকেট শিকার করা ফার্গুসনও সম্ভাব্যদের তালিকায় আছেন।