Photo Credit: Twitter/ ICC

করোনাকালের বিরতিতে লম্বা সময় থাকতে হয়েছে মাঠের বাইরে। ঘরোয়া ক্রিকেটের দুটো প্রতিযোগিতা দিয়ে প্রস্তুতি নেওয়া হলেও আন্তর্জাতিক আঙিনা সবসময়ই অন্যরকম জায়গা। সেই চ্যালেঞ্জটা বাংলাদেশ দল জৈব ‍সুরক্ষা বলয়ে থেকে কেমন নিতে পারে, সেটাই ছিল দেখার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টানা দুই জয়ে সিরিজ নিশ্চিত করার পর তামিম ইকবালরা জানিয়ে দিলেন, করোনাকাল তাদের কিছুই কাড়তে পারেনি।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ৭ উইকেটের সহজ জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। আজ (শুক্রবার) দুর্দান্ত বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪৩.৪ ওভারে ১৪৮ রানে গুটিয়ে দিয়ে ৩৩.২ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় তামিমরা।

এতে ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে স্বাগতিকরা পায় পঞ্চম ওয়ানডে সিরিজ জয়ের স্বাদ। একই সঙ্গে বিশ্বকাপ সুপার লিগে আরও ১০ পয়েন্ট যোগ হলো বাংলাদেশের। সব মিলিয়ে স্বাগতিকদের পয়েন্ট হলো ২০।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সফরকারীদের দেওয়া ১৪৮ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুটা ভালোই করে টাইগাররা। দুই ওপেনার তামিম এবং লিটন দেখেশুনেই শুরু করেন। ভালোই খেলতে থাকা লিটন বিদায় নেন ব্যক্তিগত ২২ রান করে। তবে অন্যপ্রান্তে অটল থাকেন অধিনায়ক তামিম। শান্তকে সঙ্গে নিয়ে এগোতে থাকেন তিনি।

দলীয় ৭৭ রানে বিদায় নেন শান্ত। তার ব্যাট থেকে আসে ১৭ রান। এরপর চতুর্থ উইকেট জুটিতে রানের চাকা সচল রাখেন সাকিব-তামিম। তামিম তুলে নেন ক্যারিয়ারের ৪৮তম হাফসেঞ্চুরি। ব্যক্তিগত ৫০ রান করেই ফিরে যান তামিম।

তবে ক্রিজে আঁকড়ে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ম্যাচশেষে সাকিব অপরাজিত থাকেন ৫১ বলে ৪৩ রানে। এছাড়া মুশফিক অপরাজিত থাকেন ৯ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৪৩.৪ ওভারে ১৪৮ (ওটলি ২৪, পাওয়েল ৪১, রিফার ২, জোসেফ ১৭, আকিল ১২*; মুস্তাফিজ ৮-৩-১৫-২, মিরাজ ৯.৪-০-২৫-৪, সাকিব ১০-০-৩০-২)।

বাংলাদেশ: ৩৩.২ ওভারে ১৪৯/৩ (লিটন ২২, তামিম ৫০, শান্ত ১৭, সাকিব ৪৩*, মুশফিক ৯*;আকিল ৯.২-০-৪৫-১, জেসন ৭-০-২৯-১, রিফার ৫-০-১৮-১)।

ফল: বাংলাদেশ ৭ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: মেহেদী হাসান মিরাজ

সিরিজ: ৩ ম্যাচের সিরিজে বাংলাদেশ ২-০তে এগিয়ে