Image Source: PCB/twitter

বৃথা গেল দানুস্কা গুনাথিলাকার সেঞ্চুরি। তিনি ১৩৩ রানের চমৎকার ইনিংস খেললেও পাকিস্তানে জয় অধরাই থাকলো শ্রীলঙ্কার। ‍সমান্তরালে ৫ উইকেটের জয়ে দেশের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জিতে নিয়েছে পাকিস্তান। করাচির দ্বিতীয় ওয়ানডের পর এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজ ২-০তে জিতে নিয়েছে স্বাগতিকরা। প্রথম ওয়ানডে বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল।

গুনাথিলাকার সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে শ্রীলঙ্কা স্কোরে জমা করেছিল ২৯৭ রান। লক্ষ্যটা ৫ উইকেট হারিয়ে ১০ বল আগেই টপকে যায় পাকিস্তান। তাতে ১০ বছর পর দেশের মাটিতে ক্রিকেট বিশ্বের বড় কোনও দলের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের উৎসবে মেতেছে তারা।

আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করা বাবর আজম ও মনোযোগী ছিলেন দ্রুত রান তোলার দিকে। খুব সময়ের মধ্যে জমে যায় র সঙ্গে তার জুটি। নুয়ান প্রদিপের বলে বাবর এলবিডব্লিউ হলে ভাঙে পঞ্চাশ ছোঁয়া জুটি।

এরপর বেশিক্ষণ টিকেননি ফখর। প্রদিপের বলে থার্ড ম্যানে ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় এই ওপেনারের ইনিংস। ৯১ বলে ৭ চার ও এক ছক্কায় করেন ৭৬ রান।

একাদশে ফেরার ম্যাচে আক্রমণাত্মক ফিফটির জন্য ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন আবিদ। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরি ও এই ম্যাচের ৩১ রানের জন্য সিরিজ সেরার পুরস্কার জেতেন বাবর।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ২৯৭/৯ (গুনাথিলাকা ১৩৩, আভিশকা ৪, থিরিমান্নে ৩৬, অ্যাঞ্জেলো ১৩, ভানুকা ৩৬, জয়াসুরিয়া ৩, শানাকা ৪৩, হাসারাঙ্গা ১০, সান্দাক্যান ০, প্রদিপ ১*; আমির ১০-০-৫০-৩, উসমান ৮-১-৪১-১, ইফতেখার ৯-১-৪৩-০, ওয়াহাব ১০-০-৮১-১, শাদাব ৯-০-৫০-১, নওয়াজ ৪-০-২৪-১)

পাকিস্তান: ৪৮.২ ওভারে ২৯৯/৫ (ফখর ৭৬, আবিদ ৭৪, বাবর ৩১, সরফরাজ ২৩, হারিস ৫৬, ইফতেখার ২৮*, ওয়াহাব ১*; প্রদিপ ৯.২-১-৫৩-২, শানাকা ৫-০-২৮-০, কুমারা ৭-০-৫৫-১, সান্দাক্যান ১০-০-৬২-০, হাসারাঙ্গা ১০-০-৫৪-১, জয়াসুরিয়া ৭-০-৩৯-১)

ফল: পাকিস্তান ৫ উইকেটে জয়ী

সিরিজ: ৩ ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে জয়ী পাকিস্তান

ম্যান অব দা ম্যাচ: আবিদ আলি

ম্যান অব দা সিরিজ: বাবর আজম