আগামী ২২ নভেম্বর থেকে কলকাতার ইডেনে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারত মধ্যেকার দুই টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। তবে এই টেস্টটি অন্যগুলোর চেয়ে আলাদা। কারণ উপমহাদেশে প্রথমবারের মতো হতে যাচ্ছে গোলাপি বলের দিবা-রাত্রির টেস্ট। আর এই টেস্ট দেখতে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হচ্ছেন সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজা।

জানা যায়, ইডেন গার্ডেনে ঐতিহ্যবাহী ঘণ্টা বাজিয়ে ম্যাচটি উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর সেই টেস্টের ধারাভাষ্য দেওয়ার আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন মাশরাফি। তবে সেই আমন্ত্রণ তিনি ফিরিয়ে দেন। তবে সাংসদ হিসেবে কলকাতার গ্যালারিতে দেখা যাবে মাশরাফি বিন মুর্তজাকে।

সিএবি সূত্রে জানা গেছে, প্রথম দিনের খেলা শেষে স্টেডিয়ামেই সংক্ষিপ্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। যেখানে বাংলাদেশের জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী রুনা লায়লা গান পরিবেশন করবেন।

ভারতীয় ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী জানিয়েছেন, দুই দল, সাবেক অধিনায়করা, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন রুনা লায়লা। এছাড়াও থাকছে জিৎ গাঙ্গুলী, সৌমেন্দ্র, সৌরজিতের পারফরম্যান্স।

ইডেন টেস্ট উপলক্ষে সিএবির যত আয়োজন-

♦ ঢাউস গোলাপি রাঙা হিলিয়াম বেলুন ওড়ানো হয়েছে ইডেনে।

♦ এই টেস্ট উপলক্ষ্যে থাকছে বিশেষ দুটি মাসকট ‘পিংকু-টিংকু’।

♦ টেস্ট শুরুর আগে নামবে আট প্যারা ট্রুপার। ভারতীয় বিমানবাহিনী এটা তত্ত্বাবধান করবে। আটজন আটটি গোলাপি বল নিয়ে নামবে। তাঁরা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্র্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে হস্তান্তর করবেন গোলাপি বল।

♦ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী দুই দলের অধিনায়ককে গোলাপি বল হস্তান্তর করবেন।

♦ টস করতে সোনার তৈরি বিশেষ কয়েন ম্যাচ রেফারিকে হস্তান্তর করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ।

♦ দুই দেশের জাতীয় সংগীত বাজাবে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)।

♦ জাতীয় সংগীতের পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বাজাবেন ইডেনের ঘণ্টা।

♦ এই টেস্টে উপস্থিত থাকতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ভারতের সাবেক সব অধিনায়ককে। তাঁরা ল্যাপ অব অনার দেবেন, প্রদক্ষিণ করবেন পুরো মাঠ। এটা হবে চা বিরতিতে।

♦ অন্য খেলার ভারতীয় কিংবদন্তি যেমন—বক্সিংয়ে মেরি কম, টেনিসের সানিয়া মির্জা, শুটিংয়ে অভিনব বিন্দ্রাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

♦ আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ২০০০ সালের নভেম্বরে অভিষেক টেস্ট খেলা বাংলাদেশ দলের সব খেলোয়াড়কে।

♦ মাঠে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন দুই শ নৃত্য শিল্পী।