Photo Credit: New York Post/ Twitter

কাসা রোসাদার প্রেসিডেন্সিয়াল ভবনে কফিনে চিরনিদ্রায় শুয়ে আছেন দিয়েগো ম্যারাডোনা। আর্জেন্টিনার পতাকা দিয়ে মোড়ানো কফিনের ওপর রাখা তার বিখ্যাত ১০ নম্বর জার্সি। চারিদিকে চলছে কিংবদন্তিকে হারানোর মাতম। শুরু হয়ে গেছে তাকে সমাহিত করার প্রক্রিয়া।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাকে সমাহিত করা হতে পারে বুয়েনস এইরেসের উপকণ্ঠে জারদিন দে পাজ সমাধিক্ষেত্রে।

অর্থাৎ, বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সকাল নাগাদ সমাহিত হতে পারেন ফুটবলের এই জাদুকরকে। রোমান ক্যাথলিক পরিবারে জন্ম নেওয়া ম্যারাডোনার বাবা-মা সমাহিত রয়েছেন জারদিন দে পাজ সমাধিক্ষেত্রে।

কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে গত বুধবার মারা যান ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচিত ১৯৮৬ বিশ্বকাপজয়ী ম্যারাডোনা। প্রিয় তারকাকে শেষবারের মতো বিদায় জানাতে বুয়েন্স আইরেসের রাস্তায় নেমে এসেছে হাজারো ভক্ত-সমর্থক।

ম্যারাডোনার পরিবারকে শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ দেওয়া হয় সবার আগে। ’৮৬ বিশ্বকাপ কিংবদন্তিকে শেষবারের মতো দেখে গেছেন তার সাবেক স্ত্রী ক্লদিয়া ভিয়াফানে, দুই কন্যা দালমা ও জিয়ান্নিনা।

দেখে গেছেন তার আরেক সাবেক স্ত্রী ভেরোনিকা ওজেদা ও সর্বকনিষ্ঠ সন্তান ফার্নান্দো ম্যারাডোনা ওজেদা। এসেছিলেন ম্যারাডোনার সর্বশেষ বান্ধবী রোসিও অলিভিয়াও। তবে রোসিও অলিভিয়াকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি প্রেসিডেনশিয়াল প্যালেসে।