টাইব্রেকারে ২২ শটের পর চ্যাম্পিয়ন ভিয়ারিয়াল

0
16
villarreal
Photo credit: Twitter

এমন মহা নাটকীয় ম্যাচও হয়! নাটকের চেয়েও নাটকীয়। পুরো ম্যাচজুড়ে উত্তেজনা। টাইব্রেকারে একের পর এক শট হলো। কারও হার মানার লক্ষ্মণ নেই। কিন্তু ২২তম শটে গিয়ে বাজিমাত করলো ভিয়ারিয়াল। শেষ পর্যন্ত মহা নাটকীয় ম্যাচটিতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে টাইব্রেকারে ১১-১০ গোলে হারিয়ে ইউরোপা লিগের শিরোপা জিতে নিলো স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়াল।

পোল্যান্ডের এনার্জা গদানস্ক স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় ইউরোপের দ্বিতীয় সারির টুর্নামেন্ট, ইউরোপা লিগের ফাইনাল। মুখোমুখি ইংল্যন্ডের ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়াল। করোনা মহামারির মধ্যে দুই বছর পর এই প্রথম দর্শকের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হলো ইউরোপা লিগের ফাইনাল। মহা নাটকীয় এই ম্যাচটি নির্ধারিত সময় ১-১ গোলে ড্র থাকার পর গড়াল অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে।

সেখানেও হলো না নিষ্পত্তি। কেউ কারো জাল খুঁজে পেলো না। এরপর ম্যাচ গড়াল ভাগ্য নির্ধারণী টাইব্রেকারে। যেখানে দুই দল শট নিলো মোট ২২টি। ২২তম শটটি নিতে আসেন ম্যানইউ গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়া। এক গোলরক্ষক শট নিচ্ছেন আরেক গোলরক্ষককে। কিন্তু ডি গিয়াকে এ পর্যায়ে এসে ঠেকিয়ে দিলেন ভিয়ারিয়াল গোলরক্ষক জেরোনিমো রুলি। বাজিমাত করে দিলেন ২২তম শটে এসে এবং সঙ্গে সঙ্গে বিজয় উল্লাসে মেতে উঠলো ভিয়ারিয়াল ফুটবলাররা।

ভিয়ারিয়ালের উনাই এমরির সামনে প্রথম ম্যানেজের হিসাবে চারবার ইউরোপা লিগ জিতে ইতিহাস গড়ার হাতছানি ছিল, সঙ্গে ইউনাইটেডের সামনে ছিল চার বছর পর প্রথম শিরোপা জয়ের সুযোগ। ঐতিহাসিক পেনাল্টি শ্যুট আউটের পর শেষ হাসি হাসলেন এমরিই, জিতে নিলেন তার চতুর্থ ইউরোপা শিরোপা।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড অধিনায়ক হ্যারি মাগুইর সম্পূর্ণ ফিট না হওয়ায় তাকে বেঞ্চে রেখেই মাঠে নামে ওলে গানার সোলশায়েয়েরের দল। প্রথম একাদশে এডিনসন কাভানি, মার্কাস র‌্যাশফোর্ড, ব্রুনো ফার্নান্ডেজ ও মেসন গ্রিনউডকে দলে রেখে নিজের মনোভাব স্পষ্ট করে দেন সোলশায়ের। অপরদিকে ভিলারিয়ালের হয়ে বিস্ময়বালক ইয়েরেমি পিনো সর্বকনিষ্ঠ স্প্যানিশ ফুটবলার হিসাবে কোন ক্লাবের হয়ে কোন বড় ইউরোপিয়ান ফাইনালে মাঠে নামেন এই ম্যাচে।