রাশিয়াকে সব ধরনের আন্তর্জাতিক খেলা থেকে চার বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি-ডোপিং এজেন্সি। এর মধ্যে ২০২০ সালে টোকিওতে অনুষ্ঠিত অলিম্পিক গেমস ও ২০২২ সালের কাতার বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারবে না দেশটি। এ ছাড়া এই আসরে রাশিয়ার পতাকা ও সঙ্গীতেরও অনুমতি দেয়া হবে না বলে জানানো হয়েছে।

তবে ডোপিং টেস্টের মাধ্যমে উত্তীর্ণ ক্রীড়াবিদরা নিরপেক্ষ পতাকার নিচে দাঁড়াতে পারবেন। সুইজারল্যান্ডের লসানে অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি-ডোপিং এজেন্সির নির্বাহী কমিটির বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্ত দেয়া হয়। তবে এই নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ২০২০ সালের ইউরো ফুটবল প্রতিযোগিতায় খেলতে পারবে রাশিয়া।

ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি জানিয়েছে, নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আবেদন করার জন্য রাশিয়া ২১ দিন সময় পাবে। যদি তারা আবেদন করে, তাহলে আবেদনটি পাঠানো হবে ক্রীড়ার সর্বোচ্চ আদালত ‘কোর্ট অব আরবিট্রেশন ফর স্পোর্টসে (সিএএস)’।

২০১৫ সাল থেকে অ্যাথলেটিক্সে দেশ হিসেবে রাশিয়ার অংশ নেওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার পাইওংচাংয়ে ২০১৮ সালের শীতকালীন অলিম্পিকে ১৬৮ জন রুশ অ্যাথলেট নিরপেক্ষ পতাকা নিয়ে অংশ নিয়েছিলেন।

২০১৪ সালে সোচিতে হওয়া আগের শীতকালীন অলিম্পিকে পদক তালিকার শীর্ষে ছিল রাশিয়ার অ্যাথলেটরা। এরপরই তাদের বিরুদ্ধে ডোপিংয়ের অভিযোগ ওঠে।

২০১৬ সালে রিও অলিম্পিকের আগে মস্কোর পরীক্ষাগারেই রাশিয়ার অ্যাথলেটদের ডোপিংয়ের প্রমাণ মেলে। এরপর তাদেরকে ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।