৩ কোটি ২০ লাখ ভারতীয় রুপিতে বিক্রি হলেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তাকে দলে ভিড়িয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে ৩টায় চেন্নাইয়ে শুরু হয়েছে আইপিএল ২১-এর নিলাম কার্যক্রম। সেখানে নিলামের ২ নম্বর সেটে ছিল সাকিবের নাম।

নিলামে সাকিবের ভিত্তিমূল্য ছিল দুই কোটি রুপি। তাকে ৩ কোটি ২০ লাখ রুপি খরচে টেনে নিয়েছে শাহরুখ খানের দল। ২০১১ সাল থেকে আইপিএলে অংশগ্রহণ করে আসছেন এই বাঁহাতি ক্রিকেটার।

২০২০ সালে আসরে কেবল খেলেননি তিনি। কারণ নিষেধাজ্ঞার কারণে ছিলেন ক্রিকেটের বাইরে। এক আসর বিরতি দিয়ে আবার আইপিএল নিলামে সাকিব ফিরেন সর্বোচ্চ ভিত্তিমূল্যের ক্যাটেগরিতে। এর আগে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ও কলকাতার হয়ে আইপিএল মাতিয়েছিলেন তিনি।

২ কোটি রুপিতে নিলামে ওঠেন সাকিব। তাকে প্রথমেই ডাকে কলকাতা নাইট রাইডার্স, দাম হাঁকায় ২২০ কোটি রুপি। কলকাতা নাইট রাইডার্স ও পাঞ্জাব কিংসের মধ্যে সাকিবকে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ কাড়াকাড়ি চলে। শেষ পর্যন্ত ৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে সাকিবকে দলে নেয় তারই প্রাক্তন দল কলকাতা নাইট রাইডার্স।

বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিবই সবচেয়ে বেশি আইপিএলে খেলেছেন। জাঁকজমকপূর্ণ এই টুর্নামেন্টে সাকিব খেলেছেন মোট ৬৩টি ম্যাচ। ৪৬টি ম্যাচে ব্যাটিং করার সুযোগ হয়েছে তার। ব্যাট হাতে করেছেন ৭৪৬ রান। স্ট্রাইকরেট ১২৬.৬৬। বল হাতে সাকিব ৬২ ইনিংসে শিকার করেছেন ৫৯টি উইকেট।

এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ৭৬টি। বাংলাদেশের জার্সিতে ৭৫টি ম্যাচে তিনি সংগ্রহ করেছেন ১৫৬৭ রান এবং বল হাতে ঝুলিতে পুরেছেন ৯২টি উইকেট।

স্বীকৃত টি-টোয়েন্টিতে সাকিব খেলেছেন মোট ৩১৭টি ম্যাচ। আইপিএল ছাড়াও বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ, ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ, পাকিস্তান সুপার লিগের পরিচিত মুখ সাকিব। খেলেছেন বিগ ব্যাশ লিগ, শ্রীলঙ্কান প্রিমিয়ার লিগেও।

সবমিলিয়ে ব্যাট হাতে ৫০৮০ রান ও বল হাতে ৩৬০টি উইকেট শিকার করেছেন তিনি। ব্যাটিংয়ে তার সর্বোচ্চ রান অপরাজিত ৮৬ ও বল হাতে সেরা ফিগার ৬ রানে ৬ উইকেট।