বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ন্যূনতম মাসিক সম্মানিভাতা ১২ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা করা হবে বলে সোমবার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখন মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ১২ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। তবে, আমি মনে করি, এই সময় ১২ হাজার টাকা কিছুই নয়। একে আমরা ২০ হাজার টাকা করে দেব।’

শেখ হাসিনা আজ দুপুরে ম্যানেজমেন্ট ইনফর্মেশন সিস্টেম (এমআইএস)-এর মাধ্যমে ইলেকট্রনিক ‘জিটুপি’ পদ্ধতিতে সরাসরি মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনের একাউন্টে সম্মানি ভাতা প্রেরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন কালে একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তবে এটি হওয়ার জন্য কিছুটা সময় প্রয়োজন কারণ জাতীয় বাজেটে এই উদ্দেশ্যে অর্থ বরাদ্দের জন্য সরকারেরও সময় প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বৃদ্ধি প্রসঙ্গে আরো বলেন, শহিদ পরিবারকে মাসিক ৩০ হাজার টাকা, মৃত যুদ্ধাহত পরিবারকে মাসিক ২৫ হাজার টাকা, ৭ বীরশ্রেষ্ঠ শহিদ পরিবারকে মাসিক ৩৫ হাজার টাকা, বীর উত্তম খেতাবধারীগণ মাসিক ২৫ হাজার টাকা, বীর বিক্রম খেতাবধারীগণ মাসিক ২০ হাজার টাকা এবং বীর প্রতীক খেতাবধারীগণ মাসিক ১৫ হাজার টাকা হারে ভাতা পাচ্ছেন।

তিনি বলেন, এত ভাগ ভাগ না করে সবাইকে এক জায়গায় নিয়ে আসার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে এবং বীরবিক্রম, বীর প্রতীকসহ সাধারণ মুক্তিযোদ্ধারা সবাই ২০ হাজার টাকা করে পাবেন।

তবে, বর্তমানে ১২ হাজার টাকা হারেই ভাতা আপাদত ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে মুক্তিযোদ্ধারা পাবেন বলেও তিনি জানান।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট একসাথে ভাতার বিষয়টি ঠিক করবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বীরশ্রেষ্ঠ এবং বীর উত্তম ব্যতীত, নিচের তিনটি স্লটকে একটি স্লটে নিয়ে আসা ভালো, কারণ সকলেই মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন।’

দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচির সংক্ষিপ্ত বিবরণ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার গৃহহীন ও সুযোগ-সুবিধাহীন মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ঘর সরবরাহ করছে।

‘আমি যতদিন সরকারে আছি, ততদিন এমন ঘটবে না যে মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো বাড়ি বা ঠিকানা নেই এবং তারা দুঃখ-কষ্টে দিন পার করছেন,’ বলেন তিনি।

জীবিকাসহ সরকার প্রত্যেকের জন্য বাসযোগ্য জায়গা সরবরাহ করবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আমরা সরকারের তরফ থেকে প্রতিটি পদক্ষেপ নিচ্ছি।’

তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষণে সরকার বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

‘সরকার প্রতিটি গণকবর সংরক্ষণের পদক্ষেপ নিয়েছে যেখানে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী এবং তাদের সহযোগীদের দ্বারা সংঘটিত অত্যাচারের চিহ্ন রয়েছে,’ বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, সরকার প্রতিটি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ করছে যেখানে মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কিত উপকরণ সংরক্ষণের জন্য একটি ছোট সংগ্রহশালা থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে মুজিববর্ষে দেশের সব গৃহহীনকে ঘরে দেওয়ার পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার গৃহ নির্মাণেরও ঘোষণা দেন।

মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৪ হাজার ১২২ কোটি টাকা ব্যয়ে গৃহীত এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের কোন গৃহ থাকবে না, তারা ঠিকানা বিহীন ভাবে কষ্ট করে থাকবেন। এটা আমি যতদিন সরকারে আছি তা অন্তত হতে পারে না।
মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যেকের থাকার মত আবাসন এবং জীবন-জীবিকার ব্যবস্থা আমরা করে দিচ্ছি এবং রাষ্ট্রীয় সম্মান দিচ্ছি এবং তাদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিতে সবধরনের পদক্ষেপ আমরা নিচ্ছি, বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং সচিব তপন কান্তি ঘোষ উপস্থিত ছিলেন।

কুড়িগ্রাম, গাজীপুর, মৌলভীবাজার, খুলনা ও চাঁদপুরসহ বিভিন্ন জেলার উপজেলা থেকে মুক্তিযোদ্ধারা এ সময় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন। তাদের সাথে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।