বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের কাছে ‘পাগলা রিজভী’ হিসেবে পরিচিত সেই রিজভী হাওলাদার আর নেই। শনিবার রাত ১০টা ২০ মিনিটে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তার মৃত্যু হয়েছে। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কোনো পদ-পদবি না থাকলেও দলের জন্য নিবেদিত এক প্রাণ ছিলেন রিজভী হাওলাদার। ঢাকায় বিএনপির প্রায় সব কর্মসূচিতেই দেখা মিলতো তার।

দিবাগত রাত ২টায় নয়াপল্টনে তাঁর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান প্রমুখ অংশ নেন।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘রিজভী হাওলাদার দল-অন্তপ্রাণ কর্মী ছিলেন। সব দলেই এমন কিছু লোক থাকে। আমাদের যেকোনো মিটিং-মিছিলে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতেন। নেতা-কর্মী সবার কাছেই রিজভী পরিচিত ছিলেন।’

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার চিকিৎসার জন্য কাকরাইলে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে যান রিজভী। পরে সেখান থেকে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে যেতে বলা হয়।

ঢামেক থেকে তিনি নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে আসছিলেন। কার্যালয়ের সামনে এসে রিকশা থেকে পড়ে মৃত্যু হয় তার।

রিজভী হাওলাদারের বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার ছোট্টকান্দা গ্রামে। তার বাবার নাম আজহার হাওলাদার। নারায়ণগঞ্জের কুতুবপুরে থাকেন তিনি। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।