‘মুজিব বর্ষ’ উপলক্ষে বছরব্যাপী অনুষ্ঠান মালা শুরু হয়েছে।

0
52

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিব বর্ষ’ উপলক্ষে বছরব্যাপী অনুষ্ঠান মালা শুরু হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মক্ষণ (১৭ মার্চ) রাত ৮ টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘মুক্তির মহানায়ক’ শিরোনামে লেজার শো ও আতশবাজী প্রদর্শন এবং শতশিশুর কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর ‘মুজিব বর্ষ’ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। রাত ১০টায় ২ ঘন্টাব্যাপী এই অনুষ্ঠান শেষ হয়।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের পর রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের ধারণকৃত ভাষণ সম্প্রপ্রচার করা হয়। এরপর শতশিশুর কন্ঠে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। অনুষ্ঠানে কামাল চৌধুরী রচিত মুকিত খানের সুরে ‘তুমি বাংলার ধ্রুব তারা’ সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানাও দেশ বরেণ্য শিল্পীদের সঙ্গে এই গানে কন্ঠ মেলান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ নতুন প্রজন্মকে জাতি গঠনমূলক কাজে অবদান রাখতে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাঁর আদর্শ আমাদের চিরন্তন প্রেরণার উৎস। তাঁর নীতি ও আদর্শ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে পড়–ক, গড়ে উঠুক সাহসী, ত্যাগী ও আদর্শবাদী নেতৃত্ব।’

স্বাধীনতার স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো দেশ ও মানুষকে ভালোবাসতে আগামী প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ঠিক যেভাবে জাতির পিতা দেশের মানুষকে ভালোবেসেছিলেন, সেভাবেই ভালোবাসতে হবে। তার আদর্শে নিজেকে গড়ে তুলতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ রেহানা বলেন, ‘আমাদের প্রাণের প্রিয় সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজ জন্মশতবার্ষিকী। তোমার হয়ে আমাদের যা কিছু আছে, তা দিয়ে দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাব। কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না। আমার বাবা বেঁচে নেই, আছেন কোটি অন্তরে। আমাদের মাঝে বেঁচে থাকবে আমাদের পিতা।’