উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর আশপাশের এলাকায় অবস্থানরত নিম্নচাপটি গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় থেমে থেমে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হচ্ছে। তবে কক্সবাজারে বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গে রয়েছে বাতাসও।

আবহাওয়া অফিসের তথ্য বলছে, নিম্নচাপটি বর্তমানে মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ, দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ, দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছে। নিম্নচাপটির কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। নিম্নচাপের কেন্দ্রের কাছে সাগর উত্তাল রয়েছে।

আবহাওয়া অফিসের তথ্য বলছে, সাধারণত বাতাসের গতিবেগ যখন ৬০ থেকে ৮৯ কিলোমিটার হয়, তখন ঘূর্ণিঝড় বলা হয়। চলতি মাসে একটি ঘূর্ণিঝড়ের আভাসের কথা আগেই জানিয়েছিল আবহাওয়া অফিস। গত বুধবার সাগরে লঘুচাপ তৈরি হয়। সেটি ধীরে ধীরে সুস্পষ্ট লঘুচাপ, সেখান থেকে নিম্নচাপ, এরপর গভীর নিম্নচাপে রূপ নেয়। এর প্রভাবে গত দুই দিন দেশজুড়ে বৃষ্টি হয়েছে।

আবহাওয়ার বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের গভীর সাগরে বিচরণ না করতেও বলা হয়েছে।