ভারতে চলছে লকডাউন। আর এরইমধ্যে ৮৬ বছরের পুরোহিত রমেশ মাথুর মৃত্যু হয়েছে। তার মরদেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার জন্য চারজন লোকের প্রয়োজন ছিল। শেষমেশ রোজার মধ্যে করোনারা ভয়-ডরকে উপেক্ষা করে তার মরদেহ নিয়ে শশ্মানে রওনা হন মুসলিমরা।

রমেশ মাথুরের ছেলে চন্দ্র মৌলি মাথুর জানিয়েছেন, ‘বাবার খাদ্যনালীতে একটা টিউমার ছিল। অনেকদিন ধরে চিকিত্‍‌সা চলছিল। মঙ্গলবার হঠাত্‍‌ তিনি মারা যান। আমার দাদা দিল্লি থেকে ফিরতে পারেননি।’

তিনি আরও বলেন, ‘লকডাউনে কোনও আত্মীয়-স্বজনও আসতে পারেননি। এই সময় প্রতিবেশীরাই আমাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেন, বাবার দেহ নিয়ে যান শ্মশানে।’

শাহপীর গেটের কাউন্সিলর মহম্মদ মোবিন জানিয়েছেন, ‘এখন এমন একটা সময়, যখন আমাদের সবার পাশে দাঁড়ানো উচিত। মানবতার পরিচয় দেওয়া উচিত। মুসলিমরা রোজার উপোষ সত্ত্বেও করোনাভাইরাসের ভয়কে দূরে সরিয়ে পুরোহিতের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোয় আমি খুব খুশি।’