SHARE

সব জটিলতার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে অনিশ্চয়তা কাটিয়ে অবশেষে আজ (৮ আগস্ট) সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পেল ‘ডুব’।

সেন্সর বোর্ডের সচিব জালাল উদ্দিন মুন্সি বলেন, সেন্সর জটিলতার অবসান হয়েছে গত দুদিনে। এখন শুধু সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যান স্যারের অফিসিয়াল স্বাক্ষর বাকি আছে। সেটা আগামী দুদিনের মধ্যে হয়ে যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

মোস্তফা সরোয়ার ফারুকী তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, সেন্সর বোর্ড থেকে এখনও আমাকে কিছু জানানো হয়নি। ছবিটি যদি সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পায় তাহলে আমি সবচেয়ে বেশি খুশি হব।

এই ছবির প্রযোজনা সংস্থা জাজ মাল্টিমিডিয়ার সিইও আলিমুল্লাহ বলেন, আমরা সেন্সরের জন্য সব রকমের প্রস্তুতি নিয়ে সেন্সর বোর্ডে জমা দিয়েছে। আশা করছি দু-একদিনের মধ্যে ছাড়পত্র পেয়ে যাবো।

গত বছরের সিনেমাটির গল্প অনুমোদন করে বাংলাদেশ ফিল্ম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন। পরে সিনেমার কাজ শেষ করে চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি সেন্সর বোর্ডে জমা পড়ে ‘ডুব’। মাঝে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে অভিযোগ উঠে, নন্দিত নির্মাতা ও উপন্যাসিক হুমায়ূন আহমেদের জীবনী নিয়ে নির্মিত হচ্ছে ছবিটি। এক্ষেত্রে হুমায়ূনপত্নী মেহের আফরোজ শাওনের কোনো অনুমতি নেয়া হয়নি।

বিকৃতভাবে হুমায়ূনের জীবনী সিনেমায় তুলে ধরার অভিযোগ এনে ১৩ ফেব্রুয়ারি সেন্সর বোর্ডে চিঠি পাঠিয়ে আপত্তি জানায় শাওন।

১৫ ফেব্রুয়ারি সিনেমাটিকে ‘নো অবজেকশন সার্টিফিকেট’ দেয় সেন্সর বোর্ড। ফের ১৬ ফেব্রুয়ারি এক চিঠির মাধ্যমে ডুব সংশ্লিষ্টদের সিনেমাটির সার্টিফিকেট বাতিল করার বিষয়ে জানানো হয়।

তবে সরয়ার ফারুকী বরাবরই শাওনের অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছেন। তার বক্তব্য ছিল, সিনেমার সব চরিত্র কাল্পনিক।

নিষেধের বেড়াজালে আটকে থাকায় দেশে মুক্তি না পেলেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চলচ্চিত্র উৎসবে প্রশংসিত হয়েছিল ছবিটি। মস্কো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপনী দিনে রুশ সাপ্তাহিক কমেরসান্ত উয়েকেন্ড জুরি পুরস্কার পেয়েছিল। পাশাপাশি আরো বেশ ক’টি চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কৃত হয়েছে।

সিনেমাটি বাংলাদেশে জাজ মাল্টিমিডিয়ার সঙ্গে যৌথভাবে প্রযোজনা করেছে ভারতের এসকে মুভিজ ও ইরফান খানের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউডের অভিনেতা ইরফান খান। সঙ্গে আছেন টালিগঞ্জের পার্নো মিত্র, বাংলাদেশের অভিনেত্রী তিশা, রোকেয়া প্রাচীসহ আরো অনেকে।