Home ঢালিউড

সংবাদ সম্মেলনে নীলা চৌধুরীঃ ইঞ্জেকশন ও বালিশ চাপায় খুন করা হয় সালমান শাহকে

47
SHARE

নায়ক সালমান শাহকে প্রথমে ইঞ্জেকশনে জেসোকিন প্রয়োগ করে ও পরে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করা হয়েছিল বলে দাবি করেছেন তাঁর মা নীলা চৌধুরী। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত হন নীলা চৌধুরী। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন সালমান শাহর দুই মামা বুলবুল চৌধুরী ও বজলু চৌধুরী এবং মামাতো দুই ভাই।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি ক্ষুব্ধ কণ্ঠে প্রশ্ন করেন, কাজের মেয়ে ডলি কীভাবে লাশ নামালো, এইটা কতোটা বাস্তব সম্মত, একটা মেয়ে কীভাবে একটা ছেলের লাশ নামাতে সক্ষম হয়? তিনি আরও বলেন, হত্যাকারী নিজে যখন সাক্ষী দিচ্ছে, তখন আর এই মামলাকে হত্যাকাণ্ড হিসেবে পুলিশের তদন্ত করতে বাধা কোথায়! দীর্ঘ ২২টি বছর আমি আদালতের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরেছি।

নীলা চৌধুরী বলেন, আমি শুরু থেকেই বলেছি এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। আসামিকে এতোদিন আপনারা খুঁজছিলেন, এখন আসামি যখন নিজে এসে ধরা দিয়েছে তখন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক। রুবী যাদের নাম বলেছে তাদের আইনি প্রক্রিয়ায় সম্মানের সাথেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক।

এছাড়া আমি শুরু থেকেই বলছি, আমার ছেলে আত্মহত্যা করে নাই, তাকে খুন করা হয়েছে। আমার ছেলের সহকারী আবুল, কাজের মেয়ে ডলি এরা কোথায়? আমার ছেলের হত্যাকাণ্ডকে প্রভাবিত করতে আমার চরিত্র নিয়ে অপবাদ দেয়া হয়েছে। আমি দুঃশ্চরিত্র নই। আমি রাজনীতি করি, এরশাদের সাথে রাজনীতি করা যদি অপরাধ হয়, শেখ হাসিনার সাথে রাজনীতিও তো তাহলে অপরাধ।

এসময় মামলার দায়িত্বপ্রাপ্ত তদন্ত কর্মকর্তা আবুল আব্দুল্লাহার অপসারণ দাবি করেন তিনি। নীলা চৌধুরী বলেন, রুবীর এই বক্তব্য সত্য নাকি আব্দুল্লাহার প্রতিবেদন সত্য? আমার একজন স্বাক্ষীকে আদালতে হাজির করা হয় নাই।

সাংবাদিকদের করা বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, কোনো ধরনের তদন্ত ছাড়া পুলিশের দেয়া প্রতিবেদনকে সত্য ধরে নিচ্ছেন কেন?

প্রসঙ্গত, বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ায় বসবাসরত রুবি তার সোমবারের ভিডিও বার্তায় বলেছিলেন, “ইমনরে (সালমান শাহর প্রকৃত নাম) সামিরা, আমার হাজব্যান্ড ও সামিরার সমস্ত ফ্যামিলি সবাই মিলে খুন করছে। ইমনরে আমার ভাই রুমিরে দিয়ে খুন করানো হইছে। রুমিরেও খুন করানো হইছে। আমি জানি না, আমার ভাইয়ের কবর কোথায় আছে। রুমির লাশ যদি কবর থেকে তুলে পোস্টমর্টেম করে, তাহলে দেখা যাবে রুমিরে গলা টিপে মেরে ফেলা হইছে।”

এদিকে, প্রথম ভিডিওতে সালমান শাহকে ‘খুনের’ জন্য স্বামীকে জড়ালেও নতুন ভিডিওতে সেই অবস্থান পাল্টেছেন রুবি। নতুন ভিডিওতে রুবি বলেন, “আমি কিন্তু কোনো হত্যা বা আত্মহত্যার সাক্ষী ছিলাম না। কিছুই দেখিনি আমি। আমি শুধু ওখানে গেছি আর সামিরার কাণ্ডকারখানা দেখেছি। যা কিছু আমি সব কিন্তু সামিরার মুখ থেকে শোনা। বাইরের কোনো মানুষের কথা আমি শুনি নাই। সামিরার মুখ থেকে শুনেই আমি এতদিন আত্মহত্যা, আত্মহত্যা বলেছি। ইমনের মত এতবড় একজন অভিনেতার ময়নাতদন্তে গরমিল হবে এটা আমার চিন্তায় ছিল না।”