গত কয়েকবছর ধরেই রক্ষণশীল সৌদির সংস্কৃতিতে বেশকিছু পরিবর্তন দেখেছে বিশ্ব। নিজেদের চেনা খোলস থেকে আস্তে আস্তে বেরিয়ে আসছে দেশটি। এবার ‘হালাল নাইটক্লাব’ চালুর ঘোষণার পর থেকে সরগরম দেশটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।


বিষয়টি নিয়ে সৌদি নাগরিকদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া ও বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।

সৌদি রাজপরিবারের পক্ষ থেকে নাইট ক্লাব ঘোষণার পর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয় ‘হালাল নাইটক্লাবে’ ওয়াটারফ্রন্ট থাকবে, এর সঙ্গে থাকবে বিশ্বের খ্যাতনামা মিউজিক গ্রুপের পরিবেশনা।

ইলেক্ট্রনিক ডান্স মিউজিক, কমার্শিয়াল মিউজিক, আরএনবি এবং হিপহপ মিউজিক উপভোগ করা যাবে এখানে।

টুইটারে অনেকে লিখেছেন, সৌদির এমন কর্মকাণ্ড দেশটির ইসলামিক চিন্তাধারা ও ঐতিহ্যের পরিপন্থী।

আবার কেউ লিখেছেন, হালাল নাইটক্লাবে আসলে কি কি করা যাবে, এটা হাস্যকর।

এর আগে, নারীদের গাড়ি চালানোর অনুমতি দেয়া, সিনেমা হল নির্মাণ, মাঠে বসে নারীদের খেলা দেখার অনুমতিসহ অনেক কিছুতেই পরিবর্তন এনেছে সৌদি।