ফাইনালে আলাদা পরিকল্পনা নেই: জয়

0
94

তৌহিদ হৃদয়ের মতো অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে পাঁচটি সেঞ্চুরি হতে পারতো মাহমুদুল হাসান জয়েরও। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে গত বছরের এক সিরিজে ৯৯ করে আউট হন তিনি। এবার সেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে জয় তুলে নিলেন দারুণ এক সেঞ্চুরিতে। গড়লেন দারুণ এক রেকর্ডও।

ভারত ছাড়া অন্য কোন দেশের ক্রিকেটারদের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে সেঞ্চুরি করার রেকর্ড ছিল না এতোদিন। জয় ভাঙলেন সেই ধারা। অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে চতুর্থ সেঞ্চুরি করে ম্যাচ সেরা হওয়া এই ক্রিকেটার ম্যাচ শেষে জানান, শুধু যুবারা নন। বাংলাদেশ জাতীয় দলও অধিকাংশ সময় নকআউট পর্ব থেকে বাদ পড়ে যায়। এবার অনূর্ধ্ব-১৯ দল ফাইনালে ওঠায় খুশি তিনি।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দারুণ সুইপ এবং পুল শট খেলে সেঞ্চুরি তুলে নেওয়া তরুণ এই ব্যাটসম্যনা ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘চিন্তা ছিল শুধু স্ট্রাইক রোটেড করে খেলা। তৌহিদ হৃদয়ের সঙ্গে দশ রান-দশ রান করে নিয়ে এগোনোর পরিকল্পনা করি। তার সঙ্গে জুঁটিটা হওয়ায় মনে হয়েছিল, ম্যাচটা আমরা জিততে পারি।’

সেঞ্চুরির আগে তিনি কিছুটা স্লায়ু চাপে ছিলেন। কারণ নিউজিল্যান্ডে ৯৯ রানে থেমেছিলেন তিনি। তবে এবার সেঞ্চুরি করেও খুশি নন তিনি। কারণ মাহমুদুল জয় সেঞ্চুরি করেই আউট হন। তার দলেরও চাওয়া ছিল তিনি শেষ করে আসবেন। কিন্তু জয় ভেবেছিলেন একটা বাউন্ডারি খেলে ম্যাচটা নিজেদের করে নেবেন। হয়নি সেটা।

বাংলাদেশ আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি ভারতের বিপক্ষে শিরোপার লড়াইয়ে নামবে। ভারত যুবা বিশ্বকাপের রেকর্ড চারবারের চ্যাম্পিয়ন। এ নিয়ে আবার টানা তিনবার যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে তারা। শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে এর আগে দু’বার ফাইনাল হেরেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল।

তবে জয় জানান, ভারতের বিপক্ষে ফাইনাল নিয়ে তারা চাপে নেই। ফাইনাল নিয়ে তাদের আলাদা কোন পরিকল্পনাও নেই। স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারলেই ভালো কিছু হবে বলে মনে করেন তরুণ এই ডানহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান।